মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C

গাবরাখালী পাহাড়

প্রাকৃতিক সৌন্দয্যের অসিম লীলাভুমি ময়মনসিংহ জেলার হালুয়াঘাট ও ধোবাউড়া উপজেলার গাবরাখালী ও গলইভাংগা গ্রাম।এই দুটি গ্রামে রয়েছে ময়মনসিংহের গারো পাহাড় নামে খ্যাত এর একাংশ।এর অপরুপ প্রাকৃতিক সৌন্দয্য মুগ্ধ করে সকল বয়সের মানষকে। বাহিরের এলাকা থেকেও মানুষ আসে এই প্রাকৃতিক দৃশ্য উপভোগ করার জন্য। সমতল ভূমি পরিবেষ্টিত পাহাড়, পাখির কলরব আর সোনালী সূর্যের সূর্ক্ষাস্তক্ষণ দেখে অবাক হয়ে গেছি । ১২৫ একর এলাকা জুড়ে ছোট-বড় ৬৭টি পাহাড় নিয়ে গাবড়াখালি পাহাড় গঠিত। পাহাড়গুলো ৭০ফুট থেকে ২০০ফুট উচু হবে (এলাকার মানুষের বর্ণনামতে) ।পাহারগুলোর বিভিন্ন নাম আছে। যেমন- চিতাখলা টিলা, যশুর টিলা, মিতালী টিলা, বাতাসী টিলা ইত্যাদি।মিতালী টিলাতে পিকনিক করার মত জায়গা ঠিক করা আছে। পাহাড়ের মাঝখানে নীচু জমি আছে পানিতে ভরে গেলে লেক মনে হবে। নীচু জমিগুলোতে বোরো মৌসুমে ভারত থেকে সরার পানি দিয়ে বোরো ধান আবাদ করা হয়।পাহাড়গুলোতে গজারি গাছ লাগানো হয়েছে।পূর্বে হাজং ও বানাই জনগোষ্ঠির বসবাস গাবড়াখালিতে। এর উত্তরপ্রান্ত সংলগ্ন এলাকায় ভারতের মেঘালয় রাজ্যের সীমানা । উপজেলা নির্বাহী অফিসারের অফিস, হালুয়াঘাট থেকে গাবড়াখালির দূরত্ব ১৪.৫ কি.মি. । উক্ত জায়গায় হালুয়াঘাট থেকে মটর সাইকেলে যেতে সময় লাগবে  ৩৫মিনিট। সন্ধ্যায় ভারতের সীমানার দিকে তাকিয়ে দেখলাম নীলাভ আলোর বিচ্ছুরন দেখা যাবে  । যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নয়ন   (মেকিয়ারকান্দা বাজার থেকে গাবড়াখালি পাহাড় পর্যন্ত ৬কিমি রাস্তা) হলে হয়ত: 'গাবড়াখালি" পাহাড় ‍একদিন হয়ে উঠবে সম্ভাবনাময় পর্যটন কেন্দ্র।

কিভাবে যাওয়া যায়:

ইহা হালুয়াঘাট থেকে ১৪ কিমি উত্তর পূর্ব দিকে অবস্থিত। মটর সাইকেল বা মাইক্রোবাসের মাধ্যমে সেখানে যাওয়া যায় ।